আওয়ামী লীগে মনোনয়ন ‘লড়াই’ নতুন মুখের আশায় বিএনপি

নওগাঁ-৩ (বদলগাছী-মহাদেবপুর) আসনটি জাতীয় সংসদের ৪৮ নম্বর নির্বাচনী এলাকা। এই আসনের বদলগাছী উপজেলায় অবস্থিত বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ও প্রাচীন বৌদ্ধ বিহার। সোমপুর বৌদ্ধ বিহার। পাল বংশের দ্বিতীয় রাজা শ্রী ধর্মপাল দেব ৮ম শতকের দিকে এটি নির্মাণ করেন। ১৮৭৯ সালে স্যার আলেকজান্ডার কানিংহাম এই বিশাল স্থাপনা আবিষ্কার করেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে আসনটির দুই উপজেলায় সম্ভাব্য প্রার্থীদের পদচারণা শুরু হয়ে গেছে। ফলে তৃণমূলের নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটারদের রাজনীতি বিষয়ক আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু এখন সম্ভাব্য প্রার্থী।

মাঠপর্যায়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন চাইতে পারেন বর্তমান এমপি মো. ছলিম উদ্দীন তরফদার (সেলিম) এবং সাবেক এমপি ও বর্তমান বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ড. আকরাম হোসেন চৌধুরী। দু’জনই দলীয় প্রার্থী হওয়ার শক্ত দাবিদার বলে মনে করছেন দলটির নেতাকর্মীরা।AL-2

অন্যদিকে বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে আসনটি পুনরুদ্ধারের জন্য মরিয়া হয়ে কাজ করবে এটাই স্বাভাবিক। সে ক্ষেত্রে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা সাবেক ডেপুটি স্পিকার আখতার হামিদ সিদ্দিকীই ছিলেন মনোনয়নের সবচেয়ে বড় দাবিদার। কিন্তু সম্প্রতি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আখতার হামিদ সিদ্দিকী। তার মৃত্যুর পর নওগাঁ-৩ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থিতা নিয়ে শুরু হয়েছে নতুন হিসাব নিকাশ। তবে এক্ষেত্রে বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফজলে হুদা আকন্দ বাবুল এবং নওগাঁ জেলা বিএনপির সদস্য রবিউল আলম বুলেট মনোনয়ন দৌড়ে অনেক এগিয়ে আছেন। দলীয় কোনো পদ পদবী না থাকলেও বিএনপির দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছেন আসফ কবির চৌধুরী (শত)।

অন্যদিকে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও নওগাঁ জেলা শাখার সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন বলে জানা গেছে।
ইতোমধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা এলাকায় সভা, সমাবেশ, গণসংযোগ করে এবং পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন টানিয়ে প্রার্থী হওয়ার ব্যাপারে নিজেদের আগ্রহের বিষয়টি জানান দিতে শুরু করেছেন। কেউ কেউ ফেসবুক-টুইটারের পাশাপাশি মতবিনিময় সভা করে নির্বাচন করার আগ্রহ প্রকাশ করছেন।

জানা গেছে, নওগাঁ-৩ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা তিন লাখ ৭৮ হাজার ১৮জন। হালনাগাদ করার পর এ সংখ্যা আরো বাড়বে বলে নির্বাচন অফিস থেকে জানানো হয়েছে।

আওয়ামী লীগ: দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা আগাম প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন। দলের ওপর মহল থেকে নির্দেশনা পেয়ে নির্বাচনী মাঠ গোছানো শুরু করেছে দলটি। ইতোমধ্যে বিভিন্ন সভা-সমাবেশ থেকে শুরু করে দলীয় বিভিন্ন কার্যক্রমে নির্বাচনকে ঘিরে চলছে আলোচনা।

দলটির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা এখন সরকারের সাফল্যের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরছেন জনগণের কাছে। দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব আগামী নির্বাচনের জন্য প্রার্থী ঠিক করবে। যাকে যোগ্য মনে হবে তাকেই মনোনয়ন দেবে।

তবে এখন পর্যন্ত ক্ষমতাসীন দলটির মনোনয়ন আলোচনা দু’জনকে ঘিরেই চলছে। তারা হলেন বর্তমান এমপি ছলিম উদ্দীন তরফদার ও সাবেক এমপি বর্তমানে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) চেয়ারম্যান ড. আকরাম হোসেন চৌধুরী।
বর্তমান এমপি ছলিম উদ্দীন দশম সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী আকরাম হোসেন চৌধুরীকে ৩০ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেন। নির্বাচিত হওয়ার প্রায় সাড়ে তিন বছর পর ৭ মে আওয়ামী লীগ ছলিম উদ্দীনকে দলীয় এমপি হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। এর আগে নবম সংসদ নির্বাচনে আকরাম হোসেন চৌধুরী বিএনপির প্রার্থী আখতার হামিদ সিদ্দিকীকে পরাজিত করে এমপি হন।

আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীই মনে করেন, দলের প্রার্থী মনোনয়ন কমিটিতে দু-একজন তৃণমূল নেতাকর্মীকে রাখলে প্রকৃত চিত্র কমিটি ভালো জানতে পারবে। এতে ভোটের ফলাফলটা আগাম কিছুটা হলেও জানা যাবে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বদলগাছী ও মহাদেবপুর উপজেলায় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সুপ্ত দুটি ভাগ আছে বর্তমান ও সাবেক এমপিকে কেন্দ্র করে। স্থানীয় সভা-সমাবেশগুলোতে প্রায়ই সেটা পরিলক্ষিত হয়।

নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ড. আকরাম হোসেন চৌধুরী নবম জাতীয় সংসদের সদস্য থাকা অবস্থায় তার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে দুই উপজেলা নেতাকর্মীরা ব্যাপক ক্ষুব্ধ হয়। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ বাণিজ্য, তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে খারাপ আচরণের অনেক নজির রয়েছে। যার ফলাফল দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ছলিম উদ্দিন তরফদারের কাছে ৩০ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। এ ছাড়া গত ৪ বছরে তিনি এমপি না থাকায় এলাকায় নেতাকর্মীদের মাঝে অনেক বিভাজনের সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বর্তমানে বিএমডিএর চেয়ারম্যান। সময় ও সুযোগ পেলেই তিনি এলাকায় আসেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে নিজেকে জড়িয়ে রেখেছেন।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, মহাদেবপুর উপজেলার চেরাগপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন বর্তমান এমপি ছলিম উদ্দীন তরফদার। তিনি ছিলেন ওই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। দশম সংসদ নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় তাকে আওয়ামী লীগ দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। অবশ্য পরে তাকে সদস্য পদ ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে বিজয়ী হয়ে প্রথম দিকে এমপি ছলিম উদ্দীন তরফদারকে অনেক সমস্যা মোকাবিলা করতে হয়েছে। পরে তাকে দলীয় সদস্য পদ ফিরিয়ে দিলে সেই সমস্যা থেকে মুক্তি পান ছলিম উদ্দিন তরফদার। এমপি হওয়ার পর এই চার বছরেই তার ব্যাপক বিত্ত বৈভব চোখে পড়ার মতো।

বিএনপি: নওগাঁ-৩ আসনটি বিএনপির দখলে ছিল ২০০৮ সাল পর্যন্ত। এর পর আসনটি আওয়ামী লীগের দখলে আসে। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বদলগাছী-মহাদেবপুর দুই উপজেলায়ই বিএনপিতে ব্যাপক কোন্দল ছিল। এই কোন্দলের কারণেই দুই উপজেলায় ইউনিয়ন ও উপজেলা কমিটি নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক রয়েছে। তবে সম্প্রতি সাবেক ডেপুটি স্পিকার আখতার হামিদ সিদ্দিকীর মৃত্যুর পর মহাদেবপুর ও বদলগাছী উপজেলার বিএনপি নেতাকর্মীরা অভিভাবকহীন হয়ে পড়েন। এ অবস্থায় তাদের মধ্যে চলমান কোন্দল ও দলীয় বিভেদ অনেকটাই কমে আসবে বলে স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানান।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কবি জসীমউদ্দীন হল ডিবেটিং ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ও বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফজলে হুদা আকন্দ বাবুল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা নওগাঁ জেলা বিএনপির সদস্য রবিউল আলম বুলেট ও ব্যবসায়ী আসফ কবির চৌধুরী (শত)।

আখতার হামিদ সিদ্দিকী এমপি থাকাকালে তার নির্বাচনী এলাকায় বিভিন্ন ধরনের উন্নয়নে ভূমিকা রেখেছিলেন। সে সব উন্নয়ন বিশেষ করে মহাদেবপুর উপজেলায় তা দৃশ্যমান হয়ে উঠেছিল। মহাদেবপুর উপজেলা সদরে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ করে তিনি বেশ প্রশংসিত হয়েছিলেন। তার সময় কালে মহাদেবপুর বদলগাছী উপজেলায় প্রত্যন্ত অঞ্চলে সড়ক যোগাযোগের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছিল। সেই উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের সুফল এখনো মানুষ পাচ্ছে। তিনি বেঁচে থাকলে নওগাঁ-৩ আসনের বিএনপির দলীয় মনোনয়ন তিনিই পেতেন বলে অনেকের ধারণা। কিন্তু হঠাৎ করে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। তার মৃত্যুর পর এই আসনটি নিয়ে বিএনপির মধ্যে শুরু হয়েছে নতুন মেরুকরণ।

আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী রবিউল আলম বুলেট। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাদার বখ্স হল শাখার ছাত্রদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক, বিশ্ববিদ্যালয় শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও মহাদেবপুর উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি ছিলেন। ৯০ সালের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন। বর্তমানে নওগাঁ জেলা বিএনপির সদস্য। কিন্তু ৯১ সালে বিএনপি সরকার গঠন করার পর পরই স্থানীয় রাজনীতিতে বৈষম্যের শিকার হন তিনি। তারপরও তিনি প্রতিকূল পরিবেশে থেকেও দলের সব কর্মকাণ্ডে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন। বিগত বন্যায় বন্যা দুর্গত মানুষদের পাশে দাঁড়ানো এবং সাহায্য সহযোগিতা ও বিএনপির নতুন সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচি বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে তিনি দলীয় ও সামাজিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছেন।

বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কবি জসীমউদ্দীন হল ডিবেটিং ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ও বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফজলে হুদা আকন্দ বাবুল রয়েছেন। তিনি মহাদেবপুর ও বদলগাছী উপজেলার বিএনপির নেতাকর্মীদের বিপদে আপদে সঙ্গেই রয়েছেন। ফজলে হুদা বাবুল বর্তমানে বিদেশে একটি বহুজাতিক কোম্পানীতে বড় পদে চাকরিরত আছেন। কিন্তু তিনি বেশ কয়েক বছর ধরে নানান রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত রয়েছেন। সুযোগ পেলেই এলাকায় এসে বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে নিজেকে ব্যস্ত রাখেন। ভিশন-২০৩০ এবং দলীয় সদস্য সংগ্রহ বিষয়গুলো নিয়ে এলাকায় দলীয় এবং সাধারণ জনগণের মাঝে তুলে ধরার ক্ষেত্রে ফজলে হুদা বাবুলের ভালো ভূমিকা রয়েছে বলে তার সমর্থকরা জানান।

বিএনপির অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী আসফ কবির চৌধুরী (শত)। তিনি পেশায় একজন ব্যবসায়ী। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র। মসজিদ-মাদরাসায় সহযোগিতা, বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

জাতীয় পার্টি: জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও নওগাঁ জেলা শাখার সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন। তিনি বিভিন্নভাবে দলীয় কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছেন।

এলাকার সাধারণ জনগণের প্রত্যাশা, এই আসনে ভোটের লড়াই হবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দলীয় প্রার্থীদের মধ্যেই। সে ক্ষেত্রে দল ও প্রার্থীর ওপর নির্ভর করবে কে ভোট যুদ্ধে বিজয়ী হবেন।

 এই রিপোর্ট পড়েছেন  90 - জন
 রিপোর্ট »রবিবার, ৩ ডিসেম্বার , ২০১৭. সময়-৭:৩৩ pm | বাংলা- 19 Agrohayon 1424
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!

Leave a Reply

4 + 2 =  

Chief Editor : Ln. Advocate Ferdaus Ahmed Asief  » E-mail :japaeditor82@gmail.com, abbokul@yahoo.com  » Mobile: 01765-375401, 01716-186230, Copyright © 2011 » All rights reserved.
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP
☼ Provided By  websbd.net  » System   Designed by HELAL .