সাংবাদিকতার দায়

রনি রেজা :
সাংবাদিকদের বলা হয় সমাজের দর্পণ। অর্থাৎ সমাজের যা কিছু ভালো-মন্দ তা স্বচ্ছতার সঙ্গে তুলে ধরাই হচ্ছে সাংবাদিকদের কাজ। স্বচ্ছতা এখানে বাহুল্য শব্দ। কেননা; ভালোকে ভালো বললে আর মন্দকে মন্দ বলে উপস্থাপন করলেই স্বচ্ছতা হয়ে যায়। আলাদা করে স্বচ্ছতা শব্দটি ব্যবহারের প্রয়োজন নেই। তবুও আমি সতর্কভাবেই এই স্বচ্ছতা শব্দটি ব্যবহার করলাম। বর্তমান প্রেক্ষাপটে ব্যবহারটা জরুরিও। যেহেতু আজ এ মহান পেশার সঙ্গে লেপ্টে গেছে দুটি নেতিবাচক শব্দ- হলুদ সাংবাদিকতা ও অপসাংবাদিকতা। সংবাদপত্র গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে চতুর্থ স্তম্ভ। রাষ্ট্রের কোনো স্তম্ভই পরস্পরের প্রতিপক্ষ নয়, বরং পরিপূরক। সাংবাদিকতা অবশ্যই একটি ঝুঁকিপূর্ণ পেশা। তবে এটি অনেক ক্ষেত্রে নিজের জন্য নয়, ব্যক্তিবিশেষ কিংবা কোনো শ্রেণি বা প্রতিষ্ঠানের জন্য ঝুঁকি বয়ে আনতে পারে। সে কারণেই এখন বহুল উচ্চারিত দুটি টার্ম হচ্ছে- হলুদ সাংবাদিকতা ও অপসাংবাদিকতা। এ দুটো আসলে একই। সাংবাদিক যদি ‘ভাড়াটে’ লোকের মতো তার পেশাকে ব্যবহার করেন তাহলে তা সমাজ তথা দেশের জন্য বড় বিপদ ডেকে আনতে পারে। বলা সমীচীন সংবাদপত্রকে প্রতিটি সূর্যোদয়েই পাঠক তথা দেশের নাগরিকদের সমীপে উপস্থিত হতে হয়; প্রতিদিনই তাকে সত্যবাদিতা ও ন্যায়-নিষ্ঠার পরীক্ষা দিতে হয়। সংবাদপত্র সতত তাই জবাবদীহিতার মুখোমুখি। তার সম্পাদকীয় নীতি স্বচ্ছ, ইতিবাচক, গণমুখী ও দায়িত্বশীল হবে- এটাই প্রত্যাশিত। আর সাংবাদিকদের মধ্যে যদি অপসাংবাদিক ও হলুদ সাংবাদিক থেকে থাকে তাহলে এদের থেকে বাঁচতে হলেও সত্যিকারের সমাজের দর্পণ চেনাটা জরুরি। এখন প্রশ্ন হচ্ছে এই স্বচ্ছ, সমাজের দর্পণ কারা? গণমাধ্যমে কাজ করলেই কি সে সাংবাদিক বনে যাবেন? যে কোনো ঘটনা প্রকাশ করলেই কি সাংবাদিক হওয়া যায়? নিশ্চয়ই না। তাহলে তো প্রযুক্তির এ যুগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই অনেক তথ্য ও খবর প্রকাশ করছেন। তারাও কি সাংবাদিক? এখানেও উত্তর নেতিবাচক। আসলে সাংবাদিকতা পেশার সব পেশাজীবীই হয়ে উঠতে পারেন না প্রকৃত সাংবাদিক। তাই ভুক্তভোগী ক্ষতিগ্রস্তরা কোনো কোনো সাংবাদিককে ক্ষাণিকটা অবজ্ঞার দৃষ্টিতে দেখে থাকেন। একজন প্রকৃত সাংবাদিক এটা কখনোই ভালোভাবে নিতে পারেন না। তাই এ সব হলুদ সাংবাদিকদের বিপক্ষে কথা বলতে হবে প্রকৃত সাংবাদিকদেরই। সাংবাদিকতার নামে যে পবিত্রতা আছে তা রক্ষার্থেই এগুলো দমন করতে হবে। এ দায়িত্ব একজন স্বচ্ছ সাংবাদিকের ওপর স্বাভাবিক নিয়মেই বর্তায়। এর পাশাপাশিও সাংবাদিকের অনেক দায়িত্ব রয়েছে। রয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক ও লিখিত কিছু দায়িত্ব। যেগুলো বাদ রেখে কোনোভাবেই একজন দায়িত্বশীল সাংবাদিক হওয়া যায় না। সাংবাদিকতায় স্বচ্ছতার পাশাপাশি এ বিষয়গুলোও জরুরি। আরো স্পষ্ট করে বলা যায়- এগুলোই হচ্ছে প্রথম ভিত। এ পর্যায়ে সেগুলো আলোচনা করা যাক-image-38216-1523654967
খবরের বিশেষত: আমাদের মনে রাখতে হবে- যা দেখি, তা খবর; যা জানি, তা প্রেক্ষাপট (নধপশমৎড়ঁহফ) এবং যা অনুভব করি, তা মতামত। খবরের যে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিশেষত্ব আছে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে: ক. সংবাদ কোনো ঘটনা নয়, ঘটনার প্রতিবেদন মাত্র; খ. খবর সাধারণত কোনো নতুন বা সাম্প্র্রতিক ঘটনার প্রতিবেদন গ. সংবাদ অবশ্যই নির্ভুল হতে হবে ঘ. সংবাদের তথ্যগুলোকে অবশ্যই বস্তুনিষ্ঠ হতে হবে ঙ. প্রতিটি প্রতিবেদনই হবে নিরপেক্ষ বা ভারসাম্যপূর্ণ চ. সংবাদ হতে হবে সংক্ষিপ্ত ও স্পষ্ট।
খবর সম্পাদনা: খবর যারা সম্পাদনা করেন তাদের বলা হয় সহ-সম্পাদক বা ংঁনবফরঃড়ৎ . ঝঁননরহম মানে হচ্ছে বিন্যাস, আর বফরঃরহম মানে হচ্ছে সম্পাদনা। তাই খবর সম্পাদনা মানে পরিমার্জন, সংশোধন ও সংযোজন। রিপোর্টারদের বলা হয়ে থাকে রণক্ষেত্রের সৈনিক এবং সহ-সম্পাদকদের বলা হয় সংবাদপত্রের অভিনন্দিত নায়ক (টহংববহ ঐবৎড় ড়ভ ঘবংিঢ়ধঢ়বৎ)। খবর নির্বাচন ও বাতিলের ক্ষেত্রে ‘নিউজ সেন্স’ (সংবাদ জ্ঞান)-ই মুখ্য ব্যাপার। সংবাদ জ্ঞানই সংবাদ মূল্য নির্ধারণ করে।
সাব-এডিটরের দায়িত্ব: সাব-এডিটরের দায়িত্ব অন্য অনেকের চেয়ে বহু বেশি। তাদের বলা হয়ে থাকে ষধংঃ পযবপশ ঢ়ড়ংঃ: (শেষ সীমান্ত ফাঁড়ি)। এজন্য সংবাদটি প্রেসে দেয়ার আগে ভালো করে পড়ে নিতে হবে এবং দেখতে হবে- খরবটি সংক্ষিপ্ত ও পড়সঢ়ধপঃ হয়েছে কিনা; ভুল ও বাহুল্য বর্জন করা হলো কিনা এবং অস্পষ্টতা দূর হয়েছে কিনা। খবরের ভালো ষড়ৎফ পষরভভ বা শিরোনাম দেয়াও সহ-সম্পাদকের দায়িত্ব।
সাংবাদিকতার নীতিমালা: সাংবাদিকতার নীতিমালা তৈরি হয় দেশের মানুষের মূল্যবোধ থেকেই। পড়ফব ড়ভ বঃযরপং (ঊঃযরপং ড়ভ লড়ঁৎহধষরংস)-এ সাংবাদিকের দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে বলা থাকলেও আইনটা কোনো ব্যাপক নয়, দায়িত্ববোধই মূল ব্যাপার। সাংবাদিকের বিবেকই বলে দেবে-কোনটা ছাপবো, কোনটা ছাপবো না। সাংবাদিকদের সব সময় মনে রাখতে হয় সত্যই এ পেশার মানুষের একমাত্র লক্ষ্য। তবু নীতিমালায় যেসব বিষয় উল্লেখ আছে, তা এখানে সংক্ষিপ্তভাবে তুলে ধরছি: ক. ভাষাকে অবশ্যই শোভনভাবে উপস্থাপন করতে হবে খ. অপরাধ সম্পর্কে লিখতে গিয়ে মনে রাখতে হবে যেন কদর্য বিষয় সংবাদে চলে না আসে গ. সংবাদ যেন অতিরঞ্জিত না হয় ঘ. অপরাধীদের প্রতি সহানুভূতিশীল হতে হবে ঙ. ‘গুজব’-এর ওপর নিউজ তৈরির আগে তা অবশ্যই যাচাই করতে হবে চ. কারো ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করা যাবে না। ব্যক্তিটি যদি পাবলিক ফিগার হয়, তার জীবনের নানা বিষয়ে প্রশ্ন করা যাবে ছ. অভিযুক্ত ব্যক্তির আত্মপক্ষ সমর্থনের অধিকার আছে, তাই তার বক্তব্য বা প্রতিবাদ ছাপানোর ব্যবস্থা করতে হবে জ. আদালতের প্রতি সম্মান প্রদর্শনপূর্বক অপরাধকে সবসময় নিরুৎসাহিত করতে হবে ঝ. সমাজ গঠনে ভূমিকা রাখতে হবে ঞ. সংবাদের কোনো তথ্য বা বক্তব্য যেন ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত না করে, সেদিকে নজর রাখতে হবে ট. প্রভাবিত হয়ে কিংবা উদ্দেশ্যমূলকভাবে নিউজ করা থেকে বিরত থাকতে হবে (লঁহশবঃ) ঠ. স্ব স্ব পত্রিকার সম্পাদকীয় নীতি অনুসরণ করতে হবে।
সম্পাদকীয় নীতি: সম্পাদকীয় নীতি বা বফরঃড়ৎরধষ ঢ়ড়ষরপু-তে কয়েকটি বিষয়কে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। এই বিষয়গুলোর ওপর নির্ধারিত হয় সম্পাদকীয় নীতি। যেমন: ১. প্রচলিত আইন: প্রতিটি কর্মরত সাংবাদিককে দেশের প্রচলিত আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকতে হয়। ২. মালিকের স্বার্থ: মালিকের ব্যবসায়িক স্বার্থ যেন অক্ষুণœ থাকে সে ব্যাপারে খেয়াল রাখতে হবে।
৩. মালিকের রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি: মালিকের ব্যবসায়িক স্বার্থের সঙ্গে তার রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিকে প্রাধান্য দিতে হয়। রাজনীতি বিষয়ে তিনি কী মত পোষণ করছেন, সেই মতানুসারে সংবাদের ট্রিটমেন্ট জড়িত।
৪. প্রেসার গ্রুপ: সংবাদপত্রে কাজ করতে গেলে কোনো সময় কোনো না কোনো গ্রুপের প্রেসারে থাকতে হয়। এই গ্রুপের সঙ্গে যথাসাধ্য চেষ্টার মাধ্যমে সমঝোতা বজায় রেখে নিউজ ছাপতে হয়।
৫. পাঠকের চাহিদা: পাঠকই সংবাদপত্রের মূলধন। এদের চাওয়া-পাওয়া, ভাবনা-চিন্তার প্রতি সাংবাদিকদের শ্রদ্ধাশীল হতে হয়। এরা কী চায়-তা বুঝে নিয়ে পত্রিকাকে ওভাবে সাজাতে হয়।

 এই রিপোর্ট পড়েছেন  180 - জন
 রিপোর্ট »শনিবার, ২১ এপ্রিল , ২০১৮. সময়-১০:৪৫ am | বাংলা- 8 Boishakh 1425
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!

Leave a Reply

5 + 9 =  

Chief Editor : Ln. Advocate Ferdaus Ahmed Asief  » E-mail :japaeditor82@gmail.com, abbokul@yahoo.com  » Mobile: 01765-375401, 01716-186230, Copyright © 2011 » All rights reserved.
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP
☼ Provided By  websbd.net  » System   Designed by HELAL .